“মানবতার কল্যাণে ধর্ম, শান্তির জন্য সংস্কৃতি” -শীর্ষক স্লোগানকে ধারণ করে রাজধানীর বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের মিলনায়তনে গত ০৫ নভেম্বর ২০১৯ তারিখ রোজ মঙ্গলবার বিকালে মাটি মিউজিকের সারাদেশ থেকে আগত জেলা প্রতিনিধিদের নিয়ে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। মাটি মিউজিকের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নাটিকা, কবিতা আবৃতি ও জাগরণী সঙ্গীতে উপস্থিত দর্শকগণ আলোরিত হন।
অুনষ্ঠানের প্রধান অতিথি মাটি মিউজিকের উপদেষ্টা, মেকদাদ এন্ড মেহরাদ অ্যাগ্রো ফার্ম লিমিটেডের চেয়ারম্যান, তওহীদ ফুটবল ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা, পিনাকল মিডিয়ার চেয়ারম্যান, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবিরোধী সোসাইটির সম্মানিত চেয়ারম্যান, হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম বলেন, “গান, কাব্য, সাহিত্য ইত্যাদি ছাড়া কোনো সভ্যতা চলতে পারে না। আধুনিক সভ্যতাও গান, কাব্য, সাহিত্য ছাড়া অচল। পৃথিবীর এমন কোনো ভূখণ্ড নেই যেখানে মানুষ গান শোনে না। বাতাস না থাকলে যেমন প্রাণীজগতের মৃত্যু অনিবার্য তেমনি কাব্য-শিল্পচর্চা-সাহিত্য-সংস্কৃতি ছাড়া মানবসভ্যতা অচল। তাই হেযবুত তওহীদও সংস্কৃতিচর্চাকে অস্বীকার করে না।
তবে হেযবুত তওহীদ কোনো সাংস্কৃতিক সংগঠন নয়, আমাদের সদস্যরা সারাদিন গান-বাজনায় মেতে থাকেন না। এটি একটি সত্যদীন প্রতিষ্ঠার আন্দোলন। আমরা সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে মানবজাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার মতো মহান একটি আদর্শ তুলে ধরছি। আমরা মনে করি না যে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হলে কোনো সংস্কৃতিমনা মানুষ বা শিল্পীকে তার সুকুমারবৃত্তির চর্চা পরিত্যাগ করতে হবে। সে শুধু অশ্লীলতা, আল্লাহর নাফরমানির চর্চা, শেরক ও কুফর না করলেই হলো।”
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন দৈনিক দেশেরপত্রের সম্পাদক, নিউজ এশিয়ার চেয়ারম্যান, শাদিয়ানা ওয়েডিং এন্ড ফেসটিভিটি সলুশানস এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর এন্ড সিইও, পিনাকল মিডিয়ার ডিরেক্টর এবং বাংলাদেশ অনলাইন টেলিভিশন অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি রুফায়দাহ পন্নী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মাটি মিউজিকের পরিচালক বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী জিল্লুল শাহিন। অনুষ্ঠান আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক শফিকুল আলম ওকবাহ তার বক্তব্যে সহযোগীতার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানান।
দুই পর্বে বিভক্ত অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। রাকিব আল হাসান কবির ‘আমার কৈফিয়ত’ আবৃতির মধ্য দিয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। এরপরই সমবেত কণ্ঠে জাতীয় কবির ‘আল্লাহতে যার পূর্ণ ঈমান, কোথা সে মুসলমান’ -গানটির সঙ্গে উপস্থিত অধিকাংশ দর্শকই মুখ মেলান। জিল্লুল শাহিনের কণ্ঠে ‘আধারে ঢাকা এই রজনী’র পর নাজমুল আলম শান্তÍর কণ্ঠে ‘আল্লাহকে যে পাইতে চায়’ এর সঙ্গে একাত্ম হয়ে উঠে পুরো অনুষ্ঠান।
ঝিনাইদাহের ইয়ামিন হোসেনের কৌতুকাভিনয়ের পর চিএইচ মোহন, রফিকুল ইসলাম ও আব্দুর রব গান গেয়ে শ্রোতাদেও মুগ্ধ করেন। আকর্ষণীয় নাটিকার পর গান গেয়ে শোনান রুবেল, চাঁদ, আল আমিন আঞ্জু ও রবিউল ইসলাম, আজমাইন ফেরদৌস, সোহেল রানা, নাজিম উদ্দিন, মন্জুর বিন সুলতান, নুরুল আমিন সাকিব ও আকরাম।
‘হোদল পুতপুতের রাজা’ নামের সংক্ষিপ্ত যাত্রার পালা অভিনয়ে ছিলেন তামজিদ এমাম তিতুমীর ও রবিউল ইসলাম। শাহিন আলমের পরিবেশনায় ‘নয়তো জড়’ গানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়। রূফায়দাহ পন্নীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠান আরও প্রাণবন্ত হয়ে উঠে। তাকে সহায়তা করেন আয়েশা সিদ্দীকা।

See Photos
See Video