উত্তরায় হেযবুত তওহীদের আলোচনা সভা

উত্তরায় হেযবুত তওহীদের আলোচনা সভা

মঙ্গলবার (২৮ জুন) বিকেল রাজধানীর উত্তরায় হুজুগ, গুজব ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে হেযবুত তওহীদের আয়োজনে একটি জনসচেতনতামূলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের মুখ্য বক্তা ছিলেন হেযবুত তওহীদের মাননীয় এমাম জানাব হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম। ঢাকা ও এর পার্শ্ববর্তী কয়েকটি জেলার নতুন যোগদানকারী কর্মী ও শুভাকাঙ্ক্ষীগণ এ আলোচনা সভায় যোগদান করেন।

উত্তরায় হেযবুত তওহীদের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

হেযবুত তওহীদের ইফতার মাহফিল

রাজধানীর উত্তরায় হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে পবিত্র মাহে রমজানে স্থানীয় সকল পর্যায়ের সাধারণ মানুষদের নিয়ে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২২ এপ্রিল ২০২২ ইং শুক্রবার উত্তরা শাখা হেযবুত তওহীদ এই ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন হেযবুত তওহীদের মাননীয় এমাম জনাব হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম।

রাজধানীর মিরপুরে হেযবুত তওহীদের ইফতার মাহফিল

হেযবতু তওহীদের ইফতার মাহফিল

রাজধানীর মিরপুর শাখা হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুষদের নিয়ে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৫ এপ্রিল ২০২২ রোজ শুক্রবার মিরপুর ১৩ নম্বরের ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৪নং ওয়ার্ড কমিউনিটি সেন্টারে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন হেযবুত তওহীদের মাননীয় এমাম জনাব হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম।

রাজধানীর মাহাখালীতে হেযবুত তওহীদের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

রাজধানীর মহাখালীতে হেযবুত তওহীদ ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৪ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বিকালে মহাখালী কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন হেযবুত তওহীদের মাননীয় এমাম জনাব হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম।

নোয়াখালীতে সাংবাদিকদের নিয়ে হেযবুত তওহীদের ইফতার মাহফিল

নোয়াখালী জেলা হেযবুত তওহীদের আয়োজনে গনমাধ্যম কর্মীদের নিয়ে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকেলে সোনাইমুড়ী শহীদি জামে মসজিদের কনফারেন্স রুমে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। হেযবুত তওহীদের চট্টগ্রাম বিভাগীয় আমীর নিজাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ইফতারপূর্ব আলোচনা সভায় মুখ্য আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম।

নোয়াখালীতে হেযবুত তওহীদের আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

নোয়াখালী জেলা হেযবুত তওহীদের আয়োজনে গনমাধ্যম কর্মীদের নিয়ে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ০৪ এপ্রিল ২০২২ইং সোমবার বিকেলে সোনাইমুড়ী শহীদি জামে মসজিদের কনফারেন্স রুমে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম বিভাগীয় আমীর নিজাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ইফতারপূর্ব আলোচনা সভায় মুখ্য আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন হেযবুত তওহীদের মাননীয় এমাম জনাব হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম।

গুজব-ধর্মান্ধতা-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে- নাটোরে মাননীয় এমাম

হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম বলেছেন, গুজব, ধর্মান্ধতা ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে গণজাগরণ সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রতিটি ঘরে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা পৌঁছে দিতে হবে। দেশকে জঙ্গিবাদী তা-ব ও সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের হাত থেকে রক্ষা করতে সকলকে এগিয়ে এসে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। গত ২৫ মার্চ ২০২২ শুক্রবার সকাল ১০টায় নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়া বাইপাস এলাকার মোল্লা কমিউনিটি সেন্টারে ‘গুজব, ধর্মান্ধতা ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জাগরণ সৃষ্টির লক্ষ্যে’ আয়োজিত এক কর্মী সম্মেলনে এ কথা বলে তিনি।

চুয়াডাঙ্গায় হেযবুত তওহীদের কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত

হেযবুত তওহীদের কর্মী সভায় হুজুগ, গুজব, ধর্মান্ধতা, অপরাজনীতিসহ সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করলেন সদস্যরা। গত ১৭ মার্চ ২০২২ তারিখ চুয়াডাঙ্গায় অনুষ্ঠিত হয় হেযবুত তওহীদের কর্মী সভা। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় এমাম জনাব হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম। এছাড়াও হেযবুত তওহীদের কেন্দ্রীয় কমিটির বেশ ক’জন সম্পাদক ও খুলনা বিভাগের দায়িত্বশীলগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় হেযবুত তওহীদের এমাম চলমান জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে হেযবুত তওহীদের করণীয় বিষয়ে আলোচনা করেন। জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার কার্যক্রম আরও বেগবান করার দিক-নির্দেশনা ফুটে ওঠে তাঁর আলোচনায়।

অর্থনীতির তালগোল, এক কাপ চা ১২০ রুপি!

অর্থনীতির তালগোল, এক কাপ চা ১২০ রুপি!

শ্রীলঙ্কায় এক কাপ দুধ চায়ের দাম এখন ১২০ রুপি! এর আগে জিম্বাবুয়ে, ভেনিজুয়েলা ইত্যাদি দেশেও ভয়াবহ মুদ্রাস্ফীতির উদাহরণ দেখেছি। এখন ওই দেশগুলোর অবস্থা কী জানি না। এই যে হঠাৎ হঠাৎ একেকটা দেশের অর্থব্যবস্থা ধ্বসে পড়া, মুদ্রাস্ফীতি চরম মাত্রায় চলে যাওয়া- এটা কীভাবে ঘটে? কেন ঘটে? এমন তো না শ্রীলঙ্কার মানুষ হঠাৎ করে কাজকর্ম করা বাদ দিয়েছে তাই অর্থনীতি ধ্বসে পড়েছে! জনগণ আগের মতোই কাজ করছে, আগে যে জমিতে যত মন ফসল ফলত এখনও তা-ই ফলছে, আগে যেই কাজের যত টাকা মজুরি পাওয়া যেত এখনও তা-ই পাওয়া যাচ্ছে, শুধু বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে গিয়ে দেখা যাচ্ছে দাম ২০গুণ বেড়ে গেছে। এ কেমন অদ্ভূতুড়ে কাণ্ড!

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রুখতে পারে সওম

দ্রব্যমূল্য নিয়ে হেযবুত তওহীদের বক্তব্য

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার দু’টো সমাধান আছে। প্রথম সমাধান হলো- যে পণ্যের দাম বেড়ে যাচ্ছে, সেই পণ্যের যোগান বাড়ানোর চেষ্টা করা। অর্থাৎ পণ্যটা যাতে বাজারে পর্যাপ্ত থাকে তা নিশ্চিত করা। এই যোগান বাড়ানো যেতে পারে দুইভাবে- উৎপাদন বাড়ানোর মাধ্যমে অথবা আমদানির মাধ্যমে। বাজারে পণ্যটার যোগান ঠিক রাখা গেলে, দোকানে সরবরাহ ঠিক থাকলে, আর অসাধু ব্যবসায়ীরা অবৈধভাবে মজুদ করতে না পারলে পণ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখা খুবই সহজ।