টাঙ্গাইল (করটিয়া) হামলা

মাননীয় এমামুয্যামানের পিতৃনিবাস করটিয়া জমিদার বাড়িতে ধর্মব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের সম্মিলিত হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। সেখানে অবস্থানরত হেযবুত তওহীদের সদস্যরা এই হামলার শিকার হন।

হেযবুত তওহীদ প্রতিষ্ঠিত হয় টাঙ্গাইলের করটিয়ায়। তাই স্বভাবতই প্রথম বিরোধিতা ও অপপ্রচারের সূচনা সেখানেই। ২০০০ সনে টাঙ্গাইলের কাশিলে বড় একটি হামলার ঘটনা ঘটে। ধর্মব্যবসায়ীরা সেখানে হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে যে অপপ্রচার চালিয়েছিল তার জবাব দিয়ে একটি হ্যান্ডবিল প্রচার করা হয়েছিল। মাননীয় এমামুয্যামানের পিতৃনিবাস করটিয়া জমিদার বাড়িতে ধর্মব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের সম্মিলিত হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এই হামলায় নেতৃত্ব দেয় ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল জামায়াত ইসলামী ও ছাত্রশিবিরের কর্মীরা। এমামুয্যামানের পিতৃনিবাস ও হেযবুত তওহীদের প্রতিষ্ঠাকেন্দ্র দাউদ মহলে অবস্থানরত টাঙ্গাইলের সদস্যরা ঐ সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন। কিন্তু এখানেও সংখ্যাধিক্যের কাছে হার মানে ন্যায়। পুলিশ এসে আক্রমণকারীদের পরিবর্তে হেযবুত তওহীদের ১১ জন আহত সদস্যকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার পর মাননীয় এমামুয্যামান আর করটিয়াতে ফিরে যান নি।

লেখাটি শেয়ার করুন আপনার প্রিয়জনের সাথে

Email
Facebook
Twitter
Skype
WhatsApp
জনপ্রিয় পোস্টসমূহ