রাজধানীর গুলিস্তানের মহানগর নাট্যমঞ্চে হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে ‘একটি শান্তিময় বিশ্ব গড়ার লক্ষে’ জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, নারী নির্যাতন ও মাদকের বিরুদ্ধে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি ২০২০) বিকেল ৩ টায় হেযবুত তওহীদের সাধারণ সম্পাদক মো. মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে এতে মূখ্য আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন- সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতাবিরোধী সোসাইটির চেয়ারম্যান ও হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পুনর্বাসন সোসাইটির চেয়ারম্যান জাতীয় বীর সেনা (অব.) এম. এ. রাজ্জাক, ঢাকার ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামী যুবলীগের মো. আবুল কাশেম মিন্টু, হেযবুত তওহীদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও নারী বিষয়ক সম্পাদক রুফায়দাহ পন্নী, প্রচার সম্পাদক এস এম সামসুল হুদা, হেযবুত তওহীদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আলী হোসেন, সাহিত্য সম্পাদক মো. রিয়াদুল হাসান, ইলদ্রিম মিডিয়ার চেয়ারম্যান মোসা. খাদিজা খাতুন, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক উম্মুতিজান মাখদুমা পন্নী এবং ঢাকা মহানগরীর উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের একাংশের সভাপতি শরিফুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে গত ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার দিনসহ পরবর্তী ৫ দিন প্রকাশিত দৈনিক বজ্রশক্তি পত্রিকার ঢাকা বিভাগে সর্বোচ্চ বিক্রয়কারী ১০ জন এবং তওহীদ প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম -এর রচিত ‘ধর্মব্যবসার ফাঁদে’ বইয়ের সর্বোচ্চ বিক্রেতাদের মধ্য থেকে ১০ জনকে পুরষ্কার ও সম্মাননা স্মারক দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানের মূখ্য আলোচক হেযবুত তওহীদের এমাম হোসাইন মোহাম্মদ সেলিম তাঁর বক্তব্যে মুসলিম জাতির বর্তমান দুর্দশার কথা তুলে ধরে বলেন, এ দুর্দশা থেকে মুক্তি পেতে হলে মুসলিমদেরকে আবার ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা তথা মানবতার পক্ষে, ন্যায়ের পক্ষে, হকের পক্ষে যদি জাতি আবার ঐক্যবদ্ধ হতে পারে, তাহলে তারা আবার পৃথিবীর শ্রেষ্ঠত্বের আসনে আসীন হতে পারবে।

তিনি বলেন, আলেম-মওলানারা এতোদিন আমার বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করেছেন। আমাকে মুরতাদ ফতোয়া দিয়েছেন। বিভিন্নভাবে অপপ্রচার চালাচ্ছেন। আর এখন আপনারা একজন আরেকজনকে কাফের ফতোয়া দিচ্ছেন।

তিনি ধর্মব্যবসায়ীদের সতর্ক করে বলেন, আপনারা আর জনগণকে বিভ্রান্ত করবেন না। জমিন আল্লাহর। এই মানবজাতি আপনাদের কেনা গোলাম নয়। তারা আল্লাহকে ভালোবাসে, রসুলকে ভালোবাসে। যেকারণে তারা আপনাদের বক্তব্য শুনতে যায়। আর এতোদিন ধরে আপনারা যে মিথ্যা প্রোপাগান্ডা চালিয়ে আসছেন, তা এখন জনগণের সামনে পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন- আজকে লক্ষ লক্ষ ধর্মপ্রাণ মুসলমানকে ডেকে নিয়ে এক আলেম, আরেক আলেমের বিরুদ্ধে, এক মৌলভী আরেক মৌলভীর বিরুদ্ধে, এক ওয়ায়েজ আরেক ওয়েজের বিরুদ্ধে, এক মুফতি আরেক মুফতির বিরুদ্ধে, এক মুফাসসির আরেক মুফাসসিরের বিরুদ্ধে, এক তথাকথিত আল্লাম আরেক তথাকথিত আল্লামার বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করছেন।

হেযবুত তওহীদের এমাম আরো বলেন, সকল নবী রাসুল এই তওহীদ নিয়েই এসেছেন, কালক্রমে মানুষ বিভিন্ন বর্ণ-গোত্র-সম্প্রদায়ে বিভক্ত হয়ে পড়ে। আল্লাহর শেষ রসুল মোহাম্মদ (সা.) এসে তাদেরকে পুনরায় তওহীদে ঐক্যবদ্ধ করেন। কিন্তু আজ আমরা আবার তওহীদের ঐক্যবন্ধনী থেকে সরে বিভন্ন দল-মত-ফেরকা-মাজহাব-তরিকায় বিভক্ত হয়ে গেছি। ফলে আমরা আমাদের শক্তি হারিয়ে পৃথিবীময় লাঞ্ছিত হচ্ছি। হেযবুত তওহীদ আবারো মুসলিম জাতিকে তওহীদের ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ঢাকার ৯ নং ওয়ার্ড যুবলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. আবুল কাশেম মিন্টু তার বক্তব্যে বলেন, আজকে হেযবুত তওহীদ গত ২৫ বছর ধরে নানা প্রতিকূতার মধ্য দিয়ে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদসহ সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে কাজ করে আসছে। বেশ কয়েকবছর ধরে নানা নির্যাতন সহ্য করেও তারা অন্যায়ের বিরুদ্ধে সকল কার্যক্রমে পিছপা হননি। তাদের সকলকে আমি ধন্যবাদ ও সাধুবাদ জানাই। আমি মতিঝিল এলাকায় অতীতের ন্যায় ভবিষ্যাতেও আপনাদের সকল কার্যক্রমে সহযোগিতা করবো ইনশাল্লাহ।

বিকেল ৩ টা থেকে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানটি শেষ হয় রাত ৯ টায়। অনুষ্ঠানটি যৌথভাবে সঞ্চালনা করেন হেযবুত তওহীদের মানিকগঞ্জ জেলা সভাপতি শাহ নেওয়াজ খান রিপন, রামপুরা শাখার সভাপতি ফরিদ উদ্দিন রব্বানী ও জাহিদুল ইসলাম মামুন। অনুষ্ঠানে যোগ দেন ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন শাখা থেকে আগত হেযবুত তওহীদের নেতা-কর্মীরা।

See Photos
See Video