বরিশালে জঙ্গিবাদবিরোধী সমাবেশ ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত

1

জঙ্গিবাদবিরোধী আদর্শ সর্বস্তরের মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে বর্তমানে হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে চলছে দেশব্যাপী সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদবিরোধী নানামুখী কার্যক্রম। এরই ধারাবাহিকতায় বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলায় ‘জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ-সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আমরা ঐক্যবদ্ধ’ এই স্লোগানে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখ সকালে উজিরপুর উপজেলার লঞ্চঘাট থেকে একটি শোভাযাত্রা বের হয়ে উজিরপুর বাজার প্রদক্ষিণ করে টেম্পুস্ট্যান্ড মোড়, উজিরপুর থানা, ডাকবাংলা চত্বর ও বিএন খান কলেজ অতিক্রম করে উপজেলা পরিষদ চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। এসময় শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণকারীদের হাতে জঙ্গিবাদবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত ফেস্টুন, ব্যানার, প্ল্যাকার্ড লক্ষ করা যায়। অনুষ্ঠানে হেযবুত তওহীদের কর্মীদের পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার আড়াই শতাধিক জনসাধারণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেন। এরপর উপজেলা পরিষদ চত্বরে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
হেযবুত তওহীদের বরিশাল-ফরিদপুর অঞ্চলের আমীর ডা. মাহবুব আলম মাহফুজের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উজিরপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অপূর্ব কুমার বাইন (রন্টু)। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হেযবুত তওহীদের আমীর মসীহ উর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক পরিমল কুমার বাইন (অনু), উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রইছ-উল ইসলাম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামাল হোসেন সবুজ, উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক খবির হোসেন হাওলাদার, পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক ও ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রিপন মোল্লা, সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা জাকির হোসেন খান প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের সভাপতি ডা. মাহবুব আলম মাহফুজ তার বক্তব্যে বলেন, জঙ্গিবাদ আর সাম্রাজ্যবাদের কালো থাবায় মধ্যপ্রাচ্যে একের পর এক দেশ ধ্বংস হয়ে গেছে। দেশগুলোর জনগণ আজ উদ্বাস্তু শিবিরে অমানবিক জীবন যাপন করছে। সেই জঙ্গিবাদ আজ আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশকে নিশানা করেছে।” তিনি বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে পুরো জাতিকে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন। বিগত কয়েক বছর ধরে আমরা হেযবুত তওহীদের সদস্যরা দেশের আনাচে-কানাচে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে হাজার হাজার অনুষ্ঠান ও কর্মসূচি পালন করেছি। সম্পূর্ণ নিঃস্বার্থভাবে, শুধুমাত্র এদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে রক্ষা করার স্বার্থে আমরা নিজেদের জীবন ও সম্পদ দিয়ে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কাজ করে যাচ্ছি। জঙ্গিবাদকে দমন করার জন্য যে আদর্শিক ভিত্তি দরকার, আমরা দেশের প্রতিটি জনপদে গিয়ে সেই আদর্শ ছড়িয়ে দিয়েছি এবং এখনো তা অব্যাহত রয়েছে।” তিনি বলেন, “জাতি যখন বৃহৎ সংকটে আপতিত হয়, তখন দল-মতের ঊর্ধ্বে ওঠে ঐক্যবদ্ধভাবে তার মোকাবেলা করতে হয়। আমরা সেই ঐক্যের আহ্বান জানিয়ে যাচ্ছি। আমাদের এই মহতী কাজে আমরা উজিরপুরবাসীর সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা কামনা করছি।”
সভার প্রধান আলোচক হেযবুত তওহীদের আমীর মসীহ উর রহমান তাঁর বক্তব্যে বলেন, জঙ্গিবাদ একটি আদর্শিক সংকট। আর একটি আদর্শকে মোকাবেলা করতে হলে সর্বাগ্রে প্রয়োজন সেই আদর্শকে ভুল প্রমাণ করা এবং প্রকৃত-সঠিক আদর্শটি মানুষের সামনে তুলে ধরা। শুধুমাত্র শক্তি প্রয়োগ করে জঙ্গিবাদীদের হয়তো সাময়িকভাবে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। কিন্তু তাদের নির্মূল করার জন্য অবশ্যই ইসলামের প্রকৃত রূপটি মানুষের সামনে তুলে ধরতে হবে। ইসলাম কি, কেন, মানুষের ধর্ম কি, তার প্রকৃত ইবাদত কি, এটা যদি মানুষের সামনে সঠিকভাবে তুলে ধরা না যায়, তবে মানুষের ঈমানকে হাইজ্যাক করে বারবার তাদের বিপথে পরিচালিত করা হবে। আর ধর্মব্যবসায়ী গোষ্ঠী, ধর্মের নামে স্বার্থান্বেষী মহল যেন তা করতে না পারে তার জন্য ইসলামের প্রকৃত রূপটি মানুষের সামনে প্রতিনিয়ত তুলে ধরছে।”
হেযবুত তওহীদের আমীর বলেন, “মানুষের ধর্ম হলো মানবতা। পৃথিবীতে যুগে যুগে যত নবী-রসুল, মহামানব এসেছেন তারা কেবল মানবতাকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। অথচ আজকে সেই মানবতাকে অস্বীকার করে একদল মানুষ ধর্মেরই নাম করে মানুষকে জবাই করছে।” তিনি বলেন, “জঙ্গিবাদীরা আজকে একদিকে এদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে, অন্যদিকে প্রিয় ধর্ম ইসলামের গায়ে তারা কলঙ্ক লেপন করে যাচ্ছে। তাদের কৃতকর্মের দরুন আজকে সাম্রাজ্যবাদীরা আমাদের নাকের উপর ছড়ি ঘুরাচ্ছে। আজকে ধর্মবিদ্বেষীরা আল্লাহ ও তাঁর রসুলকে নিয়ে প্রশ্ন তুলছে। এ কেমন ধর্ম যা নিজ রসুলের ব্যক্তিত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ করে?”
তিনি বলেন, “আজ জঙ্গিবাদ ও সা¤্রাজ্যবাদীদের এই দ্বৈত ষড়যন্ত্র থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্য পুরো জাতিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। অন্যথায় আমাদেরকেও ইরাক, সিরিয়া, আফগানিস্তানের মতো ভাগ্য বরণ করে নিতে হবে। কিন্তু ত্রিশ লক্ষ মানুষের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত এই বাংলার স্বাধীনতাকে আমরা হারিয়ে যেতে দিতে পারি না। তাই আজ সময় এসেছে, সকল বিভেদ ভুলে ১৬ কোটি বাঙালিকে ঐক্যবদ্ধ করে এক সুদৃঢ় ঐক্যপ্রাচীর গড়ে তোলার, যেন কোনো অশুভ শক্তি এই বাংলার মাটিতে প্রবেশ করতে না পারে।”
প্রধান অতিথি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অপূর্ব কুমার বাইন বলেন, ‘একজন মানুষের বিপদে, দুঃসময়ে অন্যজনের হৃদয় দুঃখে ভারাকান্ত হওয়া, সেই বিপদ থেকে তাকে রক্ষা করা এটাই মানবতা, এটাই ধর্ম। মহামানবরা এটাই করেছেন, এক্ষেত্রে বিপদগ্রস্ত মানুষটি হিন্দু না মুসলমান, বৌদ্ধ না খ্রিষ্টান সেটা তারা দেখেননি।’ তিনি বলেন, ‘জঙ্গিরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে গ্রেনেড দিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে, কিন্তু সক্ষম হয়নি। কারণ সৃষ্টিকর্তা তাকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছেন। সেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন, আমরা উজিরপুরবাসী যাবতীয় সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে আজ ঐক্যবদ্ধ হলাম।’
তিনি আরো বলেন, ‘১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বীর মুক্তিযোদ্ধারা তাদের ত্যাগের বিনিময়ে আমাদের স্বাধীন বাংলাদেশ উপহার দিয়েছেন। বীর শহীদদের রক্তের বিনিময়ে পাওয়া এই দেশে কোনো প্রকারেই জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেয়া হবে না।” তিনি হেযবুত তওহীদের পক্ষ থেকে এমন একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় আন্দোলনের নিবেদিতপ্রাণ কর্মীদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
বিশেষ অতিথি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক পরিমল কুমার বাইন (অনু) তার বক্তব্যে বলেন, ‘আমি সনাতন ধর্মাবলম্বী হলেও মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর জীবনী পড়েছি। যতই তার সম্বন্ধে জেনেছি, ততই তার প্রতি শ্রদ্ধা বেড়েছে। তিনি ছিলেন মানবতার মূর্ত প্রতীক। তিনিতো সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ শিক্ষা দেননি। তাহলে আজ যারা ধর্মের নামে সন্ত্রাস করছে, তাদের মদদদাতা কারা সে সম্বন্ধে আমাদের ভাবতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘বাঙ্গালি জাতি সংগ্রামী জাতি। আমরা হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সংগ্রাম করে অত্যাচারী শাষকগোষ্ঠী ব্রিটিশ ও পাকিস্তানিদের হাত থেকে এদেশকে রক্ষা করেছি। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধভাবে আমরা আসন্ন জঙ্গিবাদ সঙ্কট থেকেও এদেশকে মুক্ত করবো ইনশাল্লাহ।’ তিনি হেযবুত তওহীদকে উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা যদি ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা এভাবে সকল মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পারেন তবে জঙ্গিবাদী গোষ্ঠী কখোনই এদেশের কোনো ক্ষতি করতে পারবে না।’
বিশেষ অতিথি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রইছ-উল ইসলাম বলেন, ‘বাংলাদেশ যখন উন্নয়নের চূড়ান্ত শিখড়ে পৌঁছে যাচ্ছে ঠিক তখনই একটি ষড়যন্ত্রকারী চক্র এই সাফল্যে ইর্ষান্বিত হয়ে দেশকে অস্থিতিশিল করার লক্ষ্যে জঙ্গিবাদী কার্যক্রম শুরু করেছে। আমরা এ জঙ্গিবাদকে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দিব। হেযবুত তওহীদ আজ যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে তার জন্য তাদেরকে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। আপনারা আপনাদের কাজ চালিয়ে যান আমরা সর্বদা আপনাদের পাশে থাকবো ইনশাল্লাহ।’
উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি কামাল হোসেন সবুজ জঙ্গিবাদবিরোধী এমন একটি বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠান করার জন্য হেযবুত তওহীদকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘আজকের এই অনুষ্ঠানের জন্য আমরা উজিরপুরবাসী গর্বিত।’ তিনি বলেন, ‘১৯৭১ সালে যেমন আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে যুদ্ধ করে এদেশকে রক্ষা করেছি তেমনি আজ বাংলার ১৬ কোটি মানুষ হেযবুত তওহীদের মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জঙ্গিবাদ নির্মূল করবো ইনশাল্লাহ।’ তিনি আরো বলেন, ‘পৃথীবিদে আর কোনও নবী রসুল আসবেন না। আল্লাহর শেষ রসুল মুহম্মদ (সা.) এর রেখে যাওয়া কাজের দায়িত্ব তার উম্মতের উপর। ইসলামকে নিয়ে যারা আজ খেলা করছে, মানুষের ঈমানকে কাজে লাগিয়ে যারা আজ জঙ্গিবাদী কার্যক্রম করছে, ইসলামকে যারা সন্ত্রাসের ধর্ম বানিয়েছে আল্লাহর রসুলের উম্মত হিসেবে তাদের প্রতিরোধ করা আমাদের দায়িত্ব। এ দায়িত্ব আমাদের পালন করতেই হবে।’ তিনি আবারও বলেন, ‘আল্লাহর রসুলের সাহাবীরা ছিলেন ভাই ভাই, তাদের মধ্যে ঐক্য ছিল দুর্ভেদ্য। আর বর্তমান চলমান ইসলামে দুই আলেম পাশাপাশি বসতে পারে না। তাদের মধ্যে ঐক্যের ছিটেফোটাও নেই। তাদের ইসলাম সত্যিকারের ইসলাম নয়।’
পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক ও ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রিপন মোল্লা বলেন, ‘হেযবুত তওহীদ সম্পর্কে ইতোপূর্বে অনেক অপপ্রচার হয়েছে। উজিরপুরের একটি মহল বহুভাবে অপপ্রচার চালিয়ে তাদের কার্যক্রমকে ব্যাহত করার প্রচেষ্টা চালিয়েছে। তাদের জঙ্গি বলে আখ্যা দিয়েছে। আমি বিশ্বাস করিনি, কারণ আমি হেযবুত তওহীদকে খুব কাছ থেকে দেখেছি, তাদের সম্বন্ধে জেনেছি। আজ সত্য উদ্ভাসিত হয়েছে। আজ উজিরপুরবাসী স্বচক্ষে অবলোকন করেছে হেযবুত তওহীদ জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে, প্রকৃত ইসলামের পক্ষে কাজ করে। তারা সত্যিকারের মানবতাবাদী। হেযবুত তওহীদের বিরুদ্ধে যারা অপপ্রচার চালিয়েছে মূলত তারাই হচ্ছে জঙ্গিবাদী।” তিনি বলেন, ইসলামের কথা অনেক শুনেছি, অনেক আলেম মাওলানাদের কাছে শুনেছি, ওয়াজে শুনেছি। কিন্তু আজকে হেযবুত তওহীদের আমীরের মুখে ইসলামের যে কথাগুলো শুনলাম এমন কথা আমি কখনো শুনিনি। হেযবুত তওহীদের আদর্শই সঠিক ইসলামের আদর্শ। আজকের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে পেরে আমি গর্বিত। আমরা উজিরপুরবাসী সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে জঙ্গিবাদকে রুখে দেব ইনশাল্লাহ।’
হেযবুত তওহীদের বরিশাল জেলা আমীর মো. খোকন হাওলাদার বলেন, ‘আমি উজিরপুরের ছেলে। আজকের অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে আশা করি হেযবুত তওহীদ সম্বন্ধে আপনাদের ধারণা পরিষ্কার হয়েছে। এরপরও আমাদের সম্বন্ধে যদি আপনাদের জানার থাকে আপনারা আমাদের কাছে আসবেন। আমরা জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে সকলের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে চাই। দয়া করে আমাদের বিরুদ্ধে যারা অপপ্রচার চালায় তাদের দ্বারা বিভ্রান্ত না হয়ে সরাসরি আমাদের সাথে যোগাযোগ করবেন। উজিরপুরে হেযবুত তওহীদের অনেক কর্মী আছে। আমাদের সাথে সরাসরি কথা বললে আমাদের সম্পর্কে যে কোনো বিভ্রান্তির অবসান ঘটবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।’ তিনি আরো বলেন, ‘একমাত্র আল্লাহ সকল ভুল-ত্রুটির ঊর্ধ্বে। মানুষ হিসেবে আমরা ভুল ত্রুটির ঊর্ধ্বে নই। আমাদের যদি কোনও ভুল ত্রুটি দেখেন তাহলে ধরিয়ে দিবেন, আমরা সংশোধন হতে প্রস্তুত।’
বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষা সমিতির উজিরপুর শাখার সাবেক সভাপতি মো. দেলোয়ার হোসেনের কণ্ঠে বিখ্যাত কণ্ঠশিল্পি ভূপেন হাজারিকার গাওয়া ‘মানুষ মানুষের জন্যে, জীবন জীবনের জন্যে’ গানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।

 

অনুষ্ঠানের ছবি

23

 

 

 

 

 

 

 

 

 

45

 

 

 

 

 

 

 

 

 

Search Here

জনপ্রিয় পোস্টসমূহ

বরিশালে জঙ্গিবাদবিরোধী সমাবেশ ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত

September 22, 2016

জঙ্গিবাদবিরোধী আদর্শ সর্বস্তরের মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে বর্তমানে হেযবুত তওহীদের উদ্যোগে চলছে দেশব্যাপী সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদবিরোধী নানামুখী কার্যক্রম। এরই ধারাবাহিকতায় বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলায় ‘জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ-সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আমরা ঐক্যবদ্ধ’ এই স্লোগানে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখ সকালে উজিরপুর উপজেলার লঞ্চঘাট থেকে একটি শোভাযাত্রা বের হয়ে উজিরপুর বাজার প্রদক্ষিণ করে টেম্পুস্ট্যান্ড মোড়, উজিরপুর থানা, […]

আরও→

চট্টগ্রামে বাংলাবাজারে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে হেযবুত তওহীদের সমাবেশ

September 8, 2016

  জঙ্গিবাদবিরোধী আদর্শ মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে দেশব্যাপী মানবতার কল্যাণে নিবেদিত হেযবুত তওহীদ আন্দোলনের চলমান কার্যক্রমের অংশ হিসাবে চট্টগ্রামে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে এক সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ শেষে বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করা হয়। গত ৮ সেপ্টেম্বর বিকালে চট্টগ্রাম মহানগরীর বায়েজীদ বোস্তামী থানাধীন বাংলাবাজার এলাকার ডেবারপাড় ব্যবসায়ী কল্যাণ সমবায় সমিতির সামনে উক্ত সুধী সমাবেশের আয়োজন […]

আরও→